এবার তবে মুক্তি দাও মুহাম্মাদ ইমরানের কবিতা

এবার তবে মুক্তি দাও মুহাম্মাদ ইমরান, এবার তবে মুক্তি দাও কবি ইমরান, এবার তবে মুক্তি দাও, Ebar Tobe Mukti Dao, bangla kobita Ebar Tobe Mukti Dao, বাংলা কবিতা এবার তবে মুক্তি দাও, Ebar Tobe Mukti Dao Muhammad Imran, bangla kobita Ebar Tobe Mukti Dao kobi imran, মুহাম্মাদ ইমরানের কবিতা এবার তবে মুক্তি দাও , Poems of muhammad Imran , Muhammad Imran Poet of heart, বাংলা কবিতা ইমরান হাসান রিপন, bangla kobita imran hasan ripon

 

এবার  তবে মুক্তি দাও  

অনেক হয়েছে, এবার মুক্তি দাও
অনেক সয়েছি, এবার ছেড়ে দাও ।
হুম, আমি জানি আমি ভুল করেছি
ভুল অমানুষকে ভালোবেসে
ভুল আত্মাকে কাছে টেনে ।

না না’ আমার কোনো আপত্তি নেই
আমার কখনো কেউ ছিল না
এখনো কেউ নেই ।
তোমাদের এই রঙ্গমঞ্চের
আলাদা একটা ভাষা আছে
তোমাদের যাপিত সমাজ ব্যবস্থার
অভিন্ন একটা রূপ আছে ।

রূপটা স্বার্থের তাগাদা পূরণের
হাসিমুখে অনর্গল মিথ্যা বলার,
গরীবের পয়সা চুষে নেওয়ার ,
নিশিদিন ভালো মানুষের অভিনয় করার ।

তোমাদের চরিত্রের বাইরে
আরও একটি চরিত্র বিদ্যমান,
কাম তার নাম অথবা যৌনতা
শাড়ির মাঝে হাঁ করে তাকিয়ে থাকার
স্বতঃস্ফূর্ত প্রবণতা নচেৎ মদ্যপান ।

মানতে কোন বাধা নেই – তোমরা যোদ্ধাজাতি ,
তোমরা বীর, বীর মুক্তিযোদ্ধা ।
জীবন্মৃত সব বাঙলা প্রাণীর হুঙ্কার
তোমরা ১৬ কোটি বাঙালির দম্ভোক্তি
আত্মিক প্রশান্তি, চূড়ান্ত অহঙ্কার ।

আবার তোমরা ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাও
মাসিক ভাতা খাও
তাকবিরুল্লাহর সহিত
০৫ ওয়াক্ত নামাজও পড়ো
কথায় কথায় ৭১ এ ফিরে যাও ।

মৃত্যু নিশ্চিত জেনেও
হয়েছ তুমি আগুয়ান
হানাদার ধ্বংস করতে
তুমি পিছপা হওনি মোটেও
অকুতভয় জাওয়ান ।
রাইফেল বইবার ক্ষত
এখনও তোমার কাঁধে অক্ষত–

বানিয়ে বানিয়ে কী সুন্দর গল্প সাজাও
দাদীমার রূপকথার ঝুলিকেও হার মানাও ।
বাটপারও তোমার কাছে মেনেছে হার
৩০% কোটা ছাড়া কী হত না তোমার ?
ওহে ভণ্ড, গর্বিত জানোয়ার
কোন ভূষণে সাজবে তুমি ,
কোন কাফনে বাঁধবে তুমি ,
জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, বীর কুলাঙ্গার ।

ও’ দুবাই ফেরত কম্বলওয়ালা !
দেখা হয়েছি কী কখনো
চাঁদের নিচে লুকানো
টার্মিনালে কুচিমুচি হয়ে
শুয়েথাকা বুড়ির থর থর কাঁপন
দেখা হয়নি বুঝি, টোকাই আর কুকুরের
গলাগলি ধরি অভিশাপের
রাত শেষ না হওয়ার রাত্রি যাপন ।

পার্থক্য কোথায় জানতে চাই,
তাঁরা কী তোমাদের থেকে
আলাদা কিছু ভাই ।
হুম ! তাঁরাও মানুষ তবে শুধু দেখতে–
সাহিত্যিকের ভাবনা জুড়ে
পাণ্ডুলিপির পৃষ্ঠা ভরে
কোটিপতির ০৬ তলার পরে
দৃষ্টিকটু একটি ছোট
ছোনের ঘরের তরে ।

অনেক তো হলো এবার দাও যেতে
এত সংক্ষিপ্ত পরিসরে
কেবলই নিজ’কে নিয়ে
পড়ে থাকার কলেবরে
কী চাও অভাগার দল খামাখা
দৃষ্টি জুড়ে তোমাদের টিআর,
রিলিফের চাল আর কাবিখা ।

তোমাদের কী অসুখ করে না, তোমরা কী মৃত্যুহীন প্রাণ ?
রোজ হাশরের ময়দানে দাঁড়াবে না তুমি, সন্মুখ রহমান । ।

মুহাম্মাদ ইমরান
১৯ ১০ ১৬

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *